জিওর্দানো ব্রুনো 16 শতকের ইতালীয় দার্শনিক, জ্যোতির্বিদ, গণিতবিদ এবং কবি। তিনি জ্যোতির্পদার্থবিদ নিকোলাস কোপার্নিকাসের মতামতকে সমর্থন করেছিলেন। তাও এমন এক সময়ে যখন ইউরোপের মানুষ ধর্মে অন্ধ ছিল। আজ থেকে ঠিক ৪২০ বছর আগে, ১৬০০ সালের ১৭ই ফেব্রুয়ারি, তাঁর নিজের বিশ্বাসে অটল থাকার জন্য ,শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী, সাহসী বিপ্লবী, জিওর্দানো ব্রুনোকে রোমে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল।
সেই সময় পর্যন্ত, চার্চ তার আধিপত্য প্রমাণ করার জন্য মানুষের মধ্যে মিথ্যা প্রচার করেছিল যে মহাবিশ্বের কেন্দ্রে পৃথিবী, পৃথিবীর কেন্দ্রে রোম, রোমের কেন্দ্রে গির্জা এবং গির্জার কেন্দ্রে বসে থাকা পাদ্রীর কাছে ঈশ্বরের থেকে সরাসরি বার্তা আসে আর সেই বার্তাটি হল “রাজাই ঈশ্বরের পুত্র”।
এই কারণে রাজা প্রজাদের কাছ থেকে কাঙ্খিত কর আদায় করত আর চার্চ রাজার অত্যাচারের নীরব সমর্থক ছিল।
ব্রুনো সারা জীবন কোপার্নিকাসের নীতি প্রচারের জন্য সংগ্রাম করে গেছেন। ব্রুনো একজন পরিশ্রমী ও পরিশ্রমী শিষ্য হিসেবে কোপার্নিকাসের নীতির পুনরাবৃত্তি করেননি, বরং সেগুলোকে আরও প্রসারিত করেছেন। তিনি কোপার্নিকাসের চেয়ে বিশ্বকে অনেক ভালো বুঝতেন।
নিকোলাস কোপার্নিকাস বলেছিলেন- ‘মহাবিশ্বের কেন্দ্র পৃথিবী নয়, সূর্য’। ব্রুনো,নিকোলাস কোপার্নিকাসের মতামতকে সমর্থন করে বলেছিলেন – ‘আকাশ শুধু আমরা যা দেখি তাই নয়, এ অসীম এবং অসংখ্য জগত ধারণ করে।’
জিওর্দানো ব্রুনো উল্লেখ করেছেন যে শুধু পৃথিবী নয়, সূর্যও তার অক্ষে ঘোরে। এই সত্যটি ব্রুনোর মৃত্যুর বহু বছর পরে প্রমাণিত হয়েছিল। ব্রুনো বলেছিলেন যে অনেক গ্রহ সূর্যের চারপাশে ঘুরছে এবং মানুষ নতুন এবং এখনও অজানা গ্রহগুলো সনাক্ত করতে পারে।
তার কথা সত্যি হয়ে গেছে, ব্রুনোর মৃত্যুর প্রায় দু’শ বছর পরে, প্রথম এই ধরনের অজানা গ্রহগুলোর মধ্যে প্রথমে ইউরেনাস, এবং কিছু পরে, নেপচুন এবং প্লুটো গ্রহ এবং আরও কয়েকশ ছোট গ্রহর খোঁজ পাওয়া যায়, যেগুলোকে গ্রহাণু (asteroids) বলা হয়।
ব্রুনো বলেছিলেন যে মহাবিশ্বের সমস্ত জগতের নিজস্ব উত্স এবং তাদের নিজস্ব শেষ রয়েছে এবং তারা প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হয়।
এই ধারণাটি খুব সাহসী ছিল, কারণ খ্রিস্টধর্ম অনুসারে পৃথিবী অপরিবর্তনীয় এবং এটা ঈশ্বর যেমন বানিয়েছে ঠিক তেমনই থাকে।
ধর্ম সম্বন্ধে ব্রুনোর দৃষ্টিভঙ্গি ছিল- ‘ধর্ম হল এমন যে, যেখানে সকল ধর্মের অনুসারীরা একে অপরের ধর্ম নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করতে পারে।’
ব্রুনো ভেবেছিলেন- আমাদের সৌরজগতের মতো প্রতিটি নক্ষত্রের নিজস্ব পরিবার রয়েছে। সূর্যের মতো, প্রতিটি তারা তার পরিবারের কেন্দ্র।
ব্রুনোর অভিমত ছিল যে- ‘শুধু পৃথিবী নয়, সূর্যও তার অক্ষের উপর ঘোরে।’
জিওর্দানো ব্রুনো একজন অত্যন্ত সাহসী এবং বিপ্লবী চিন্তাবিদ ছিলেন। তার চিন্তা ভাবনা রাজা এবং পোপের মধ্যে অসৎ জোটের পর্দাফাঁস করে , কৃষক এবং শ্রমিকদের কষ্টার্জিত অর্থ লুট করার পরিকল্পনাকে প্রকাশ করে, তাই তাকে গির্জার পাদ্রীদের বিরোধিতার সম্মুখীন হতে হয়েছিল।
যাজক জিওর্দানো ব্রুনোকে তার সবচেয়ে বড় শত্রু মনে করতে শুরু করে।
বিশ্বের সংখ্যা অসীম, এবং মহাবিশ্বের কোন শুরু এবং কোন শেষ নেই, মহাবিশ্বের সৃষ্টি এবং পৃথিবীতে যীশু খ্রিস্টের আগমন সম্পর্কে বাইবেলের বিবৃতিগুলিকে বিকৃত করার জন্য তাঁর এই তত্ত্ব যথেষ্ট ছিল।’বাইবেল’-এর এই বক্তব্যগুলো ছিল খ্রিস্টধর্মের স্তম্ভ। জিওর্দানো ব্রুনোর বিরুদ্ধে পাদ্রীদের দ্বারা প্রস্তুত করা অভিযোগ পত্রে একশ ত্রিশটি অনুচ্ছেদ রয়েছে। এই মহান বিজ্ঞানীকে “ঈশ্বরের নিন্দুক” বলে অভিহিত করে পাদ্রীরা এবং তারা চেষ্টা চালিয়ে যায় যে সমস্ত শাসকরা তাদের দেশ থেকে ব্রুনোকে বের করে দিক। কিন্তু ব্রুনো যতই ঘুরে বেড়াতেন, ততই তিনি তার সাহসী নীতি প্রচার করতে থাকেন।
নিজ দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন, ব্রুনো সবসময় তার রৌদ্রোজ্জ্বল দেশ ইতালির জন্য উৎসুক হয়ে থাকতেন। নির্বাসিত ব্রুনোর জন্য দেশে ফিরে আসা খুবই বিপজ্জনক ছিল, কিন্তু মোচেনিগো তাকে কৌশল করে আশ্বস্ত করে যে সে তার শিক্ষককে শত্রুদের হাত থেকে রক্ষা করবে। ব্রুনো বিদেশ ঘুরে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। তিনি কপট মোচেনিগোকে বিশ্বাস করেন।
স্পেন এবং ইতালিতে ইনকুইজিশন (Inquisition ) নামক ভয়ানক আদালত ছিল, যারা ধর্মের বিরোধিতা করত তাদের উপর অত্যাচার করত এই আদালত।
ব্রুনো ইতালির ভেনিসে এসে মোচেনিগোকে পড়াতে শুরু করেন। কয়েক মাস শিক্ষার পর, মোচেনিগো জানায় যে ব্রুনো তাকে সঠিকভাবে পড়াচ্ছে না। এই অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায়, ব্রুনো ভেনিস ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেন এবং মোচেনিগো ইনকুইজিশনকে এটি জানিয়ে দেয়। ১৫৯২ সালের ২৩শে মে এই বিশিষ্ট বিজ্ঞানীকে কারারুদ্ধ করা হয়। কারাগারে তিনি নির্যাতিত আট বছর কাটিয়েছেন।
এই খুনিরা ব্রুনোকে আট বছর জেলে রেখেছিল কারণ তারা আশা করেছিল যে এই জ্যোতির্বিজ্ঞানীকে তার তত্ত্ব ছেড়ে দিতে বাধ্য করতে পারবে আর যদি এটা হয় তাহলে তাদের সবার জন্য এটা একটা বিরাট জয় হতো। সমগ্র ইউরোপ এই বিশিষ্ট বিজ্ঞানীকে জানত এবং শ্রদ্ধা করত। যদি ব্রুনো ঘোষণা করতেন যে তিনি ভুল ছিলেন এবং পাদরিরা সঠিক , তাহলে অনেকে আবার বিশ্ব সৃষ্টি সম্পর্কে ধর্মের বিবৃতিতে বিশ্বাস করবে। কিন্তু জিওর্দানো ব্রুনো ছিলেন পাথরের মতো দৃঢ়, পাদ্রীদের হুমকি বা নির্যাতন তাঁকে বিভ্রান্ত করতে পারেনি। তাঁকে হাল ছাড়তে না দেখে ১৬০০ খ্রিস্টাব্দের ১৭ই ফেব্রুয়ারি ধর্মের ঠিকাদাররা (তৎকালীন পোপ এবং গির্জার পাদ্রীরা) প্রকাশ্যে ব্রুনোকে রোমের ভরা চত্বরে একটি স্তম্ভের সাথে বেঁধে পুড়িয়ে মারে।
হাসতে হাসতে আগুনে পুড়ে যাওয়া স্বীকার করলেন ব্রুনো কিন্তু তিনি তার তথ্য ও সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন। তার মুখে কোন ভয় বা অনুশোচনা ছিল না। তার পূর্ণ বিশ্বাস ছিল যে এমন একদিন অবশ্যই আসবে যখন সমগ্র বিশ্ব তার আবিষ্কারকে সত্য বলে মেনে নেবে।
ঊনবিংশ-বিংশ শতাব্দীর সমালোচকরা তাকে ‘স্বাধীন চিন্তাবিদ শহীদ’ এবং আধুনিক বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারার ঘোষক বলে মনে করেছেন।

কালাগ্নি রুদ্র


0 Comments

Leave a Reply

Avatar placeholder

Your email address will not be published.